মেনু নির্বাচন করুন

কার্যক্রম

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর স্থানীয় সরকারের আওতাভুক্ত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ভবন তৈরীর ক্ষেত্রে প্রযুক্তিগত উন্নয়ন পরিকল্পনা এবং সাহায্যের জন্য বাংলাদেশ সরকার এই সংগঠনটি তৈরী করে। এই প্রতিষ্ঠানটি বিভিন্ন সেতু-কালভার্ট, রাস্তা ইত্যাদি নির্মাণ করতে পরিকল্পনা প্রণয়নসহ বিভিন্ন ব্যবস্থা গ্রহণ করে থাকে। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি অর্জনের ক্ষেত্রে পল্লী উন্নয়ন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ঊনবিংশ শতাব্দীর ষাটের দশকের সূচনালগ্নে পল্লী উন্নয়নের জন্য কুমিল্লা মডেলের নিম্ন চারটি কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছিল, যার মধ্যে ছিল-

  • থানা প্রশিক্ষণ ও উন্নয়ন কেন্দ্র
  • পল্লীপূর্ত কর্মসূচি
  • থানা সেচ কর্মসূচি
  • দ্বি-স্তর বিশিষ্ট সমবায়

কুমিল্লা মডেলের অন্তর্ভুক্ত পল্লীপূর্ত কর্মসূচি বাস্তবায়ন ছিল মূলতঃ গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়নের মূল ভিত্তি। পরবর্তীতে সত্তরের দশকে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের আওতায় এ কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য একটি ইঞ্জিনিয়ারিং সেল গঠন করা হয়, যা ১৯৮২ সালে উন্নয়ন বাজেটের আওতায় ‘ওয়ার্কস প্রোগ্রাম উইং’ এ রুপান্তরিত হয়। ১৯৮৪ সালের অক্টোবরে ওয়ার্কস প্রোগ্রাম উইং রাজস্ব বাজেটের আওতায় স্থানীয় সরকার প্রকৌশল ব্যুরো (এলজিইবি) রূপে পুনর্গঠিত হয়। ১৯৯২ সালের আগস্ট মাসে এলজিইবিকে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) হিসেবে উন্নীত করা হয়।

কুমিল্লা মডেলের অন্তর্গত চারটি কর্মসূচির মধ্যে দ্বি-স্তর বিশিষ্ট সমবায় কর্মসূচি বাদে অবশিষ্ট তিনটির কাজ বাস্তবায়ন করছে এলজিইডি। এসব কার্যক্রম- গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়ন, ক্ষুদ্রাকার পানি সম্পদ উন্নয়ন ও নগর উন্নয়ন। এই তিনটি সেক্টরের আওতায় বাস্তবায়ন করা হয়ে থাকে। এলজিইডি একটি বিকেন্দ্রীকৃত প্রতিষ্ঠান, যার জনবলের প্রায় আটানব্বই শতাংশ মাঠ পর্যায়ে কাজ করে।